খোলা সয়াবিন পলি প্যাকের মোড়কে বিক্রি হবে

ওয়ার্ল্ড বিডি নিউজ, ঢাকা : খোলা সয়াবিন এখন থেকে পলি প্যাকের মোড়কে বাজারজাত করতে হবে। প্যাকেটের গায়ে সর্বোচ্চ খুচরা বিক্রয়মূল্য (এমআরপি), উৎপাদন ও মেয়াদোত্তীর্ণের তারিখ এবং উৎপাদক প্রতিষ্ঠানের নাম উল্লেখ থাকতে হবে।

খোলা সয়াবিন তেল খুচরা বাজারে প্যাকেটজাত করে বিক্রি নিশ্চিত করতে শিল্প মন্ত্রণালয়কে ব্যবস্থা নিতে চিঠি দিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। গত ১০ সেপ্টেম্বর বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে শিল্প সচিবের কাছে পাঠানো ওই চিঠিতে সয়াবিন তেলের যথাযথ মান রক্ষা, সয়াবিন তেলের সঙ্গে পাম তেল মেশানোর প্রবণতা পরিহার, লিটার না কেজি – এ ধরনের বিভ্রান্তি দূর করতে খোলা সয়াবিন বাজারজাত করার পরিবর্তে প্যাকেটজাত মোড়কে সরবরাহ নিশ্চিত করতে বলা হয়।

চিঠি পাওয়ার পর দুই দিনের মাথায় গত রোববার (১২ সেপ্টেম্বর) শিল্প মন্ত্রণালয় তেল উৎপাদক প্রতিষ্ঠান, পরিবেশক ও পাইকারি বিক্রেতা, বিএসটিআই, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট স্টেকহোল্ডারদের নিয়ে জরুরি বৈঠক করেছে।

বৈঠকের সিদ্ধান্তের ব্যাপারে শিল্প মন্ত্রণালয়ের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের দায়িত্বশীল একটি সূত্র জানায়, দেশে আর কোনো খোলা তেল বিক্রি হবে না। সয়াবিন তো বটেই, পাম তেলও বিক্রি হবে পলিপ্যাক মোড়কে। তবে প্রাথমিকভাবে সারা দেশে এটা বাস্তবায়ন সম্ভব নাও হতে পারে।

এ জন্য ভোজ্যতেলের বড় সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানগুলোকে খোলা সয়াবিন তেল বাজারজাত করা থেকে সরে আসার তাগিদ দেয়া হয়েছে। পর্যায়ক্রমে ছোট প্রতিষ্ঠানগুলোকেও বাধ্য করা হবে।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (আমদানি অনুবিভাগ) এ এইচ এম সফিকুজ্জামান বলেন, ‘প্রাথমিক উদ্যোগটি ছিল শিল্প মন্ত্রণালয়ের। তারা অনেক আগেই চেয়েছিল খোলা তেল বাজারজাত বন্ধ করতে। কিন্তু, নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের তদারক মন্ত্রণালয় হিসেবে করোনা পরিস্থিতি, ব্যবসায়ীদের অনুরোধ এবং দেশে ভোক্তার সক্ষমতাসহ নানাদিক বিবেচনা করে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে শিল্প মন্ত্রণালয়কে পদক্ষেপটি বাস্তবায়নে আরও কিছুদিন সময় নেয়ার জন্য বলা হয়েছিল। এরপর একটা লম্বা সময় পার হয়েছে। সয়াবিন তেলের আন্তর্জাতিক বাজার পরিস্থিতির উল্লম্ফন ঘটেছে। এই সময়ে দেশে সয়াবিন ও পাম অয়েলের দামে একটা উল্লেখযোগ্য তফাৎ সৃষ্টি হয়েছে। ফলে সয়াবিনের সঙ্গে পাম তেলের সংমিশ্রণ প্রবণতা বেড়ে গেছে। এছাড়া বিক্রয় পর্যায়ে কেজি-লিটারের পার্থক্যসহ খোলা তেলের স্বাস্থ্যমান নিয়েও অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে। এ পরিস্থিতিতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় চিঠি পাঠিয়ে শিল্প মন্ত্রণালয়কে তাদের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে অনুরোধ করেছে। এখন কবে নাগাদ তা বাস্তবায়ন করা হবে, সে সিদ্ধান্ত নেবে শিল্প মন্ত্রণালয়।’

সিটি গ্রুপের পরিচালক (অর্থ) বিশ্বজিৎ সাহা বলেন, ‘সরকার একটি সিদ্ধান্ত দিলে উৎপাদকদের সেটি বাস্তবায়ন করতে হয়। দেশের প্রচলিত আইন, বিধি, নীতি ও সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী তা সবাই মানতে বাধ্য। উৎপাদকরা নিশ্চয়ই যার যার মতো করে খোলা সয়াবিন বাজারজাত বন্ধের চেষ্টা করবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘খোলা তেল বাজারে স্থায়ীভাবে সরবরাহ বন্ধ করতে উৎপাদকরা ২০২২ সালের ডিসেম্বরকে লক্ষ্য ধরে এগোচ্ছে। তবে ইতোমধ্যে উৎপাদকরা তার প্রস্তুতিও নিতে শুরু করেছে। অল্প সময়ের ভেতরে তার প্রতিফলনও হয়তো দেখা যাবে।’