যবিপ্রবিতে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সাথে ভিসি’র মতবিনিময়

যশোর: দেশের বিভিন্ন স্থানে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের মন্দির ও বাড়িঘরে হামলার ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়ে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ আনোয়ার হোসেন বলেছেন, এ ঘটনায় আমি ভীষণ মর্মাহত। তবে এ বিশ্ববিদ্যালয়ে যে অসাম্প্রদায়িক পরিবেশ রয়েছে, সেটা বজায় থাকবে। গভীর রাতেও যদি আপনারা কোনো সমস্যায় পড়েন, তাহলে আমার সাথে যোগাযোগ করবেন। আমি সব সময় আপনাদের পাশে আছি।

আজ শনিবার দুপুরে যবিপ্রবির প্রশাসনিক ভবনের সম্মেলন কক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সঙ্গে দুর্গা পূজা পরবর্তী মতবিনিময় সভায় অধ্যাপক ড. মোঃ আনোয়ার হোসেন এসব কথা বলেন।

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের উদ্দেশ্যে অধ্যাপক ড. মোঃ আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘আমি যতক্ষণ এ বিশ্ববিদ্যালয়ের দায়িত্বে আছি, ততক্ষণ কেউ আপনাদের গায়ে হাত দিতে পারবে না। আপনাদের গায়ে কেউ হাত দেওয়ার আগে, আমার গায়ে হাত দেওয়া লাগবে।’ তিনি বলেন, যারা প্রকৃত মুসলমান, তাদের যত টাকাই বা প্রলোভন দেওয়া হোক না কেনো তিনি কখনোই মসজিদে গিয়ে একটি মূর্তি রাখবেন না। আবার একজন প্রকৃত সনাতন ধর্মাবলম্বীকে যতই প্রলোভন দেওয়া হোক না কেনো, তিনি কখনোই মুসলমানদের পবিত্র ধর্মগ্রন্ত মন্দিরে নিয়ে রাখবেন না। এটা স্বাভাবিক চিন্তা-চেতনার যেকোনো মানুষ বলতে পারবেন, এর জন্য জ্ঞানী হওয়ার প্রয়োজন নেই। সুতরাং যারা এ কাজটি করেছে, তারা উদ্দেশ্যেপ্রণোদিতভাবেই করেছে। তারা ধর্মের প্রকৃত শিক্ষা, সহষ্ণিুতা ও সহমর্মিতা বোঝে না।
সকলকেই পারস্পারিক ভ্রাতৃত্ববোধ ও সহমর্মিতা বজায় রাখার আহ্বান জানিয়ে অধ্যাপক ড. মোঃ আনোয়ার হোসেন আরও বলেন, এ বিশ্ববিদ্যালয়ে আমরা পারস্পারিক সৌহার্দ্য-সম্প্রীতি বজায় রাখব। একজনের ব্যাথায় আরেকজন ব্যথিত হব। একজনের সুখে আরেকজন সুখবোধ করব। আশা করি, এই আচরণ যবিপ্রবির সকল ধর্মের মানুষের মধ্যে থাকবে। সনাতন ধর্মাবলম্বীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘এটা আপনার দেশ। এই ধারণ পোষণ করে আপনারা এ দেশে থাকবেন। আসুন, আমরা এমন একটি শিক্ষা ব্যবস্থা গড়ে তুলি, যেটা অসম্প্রদায়িক, উন্নত ও সমৃদ্ধশালী বাংলাদেশ গঠনে সহায়ক হয়।
মতবিনিময় সভায় আরও বক্তব্য দেন যবিপ্রবির রিজেন্ট বোর্ডের সদস্য ও কেমিকৌশল বিভাগের অধ্যাপক ড. বিপ্লব কুমার বিশ্বাস, এ্যাগ্রো প্রডাক্ট প্রসেসিং টেকনোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মৃত্যুঞ্জয় বিশ্বাস, ফিশারিজ অ্যান্ড মেরিন বায়োসায়েন্স বিভাগের অধ্যাপক ড. সুব্রত মন্ডল, রেজিস্ট্রার প্রকৌশলী মো. আহসান হাবীব, গ্রন্থাগারিক (চলতি দায়িত্ব) স্বপন কুমার বিশ্বাস, পরিচালক (পরিকল্পনা, উন্নয়ন ও পূর্ত) পরিতোষ কুমার বিশ্বাস, ফার্মেসী বিভাগের সহকারী অধ্যাপক দেবেন্দ্র নাথ রায়, পুষ্টি ও খাদ্য প্রযুক্তি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক রাজিব কান্তি রায়, ইংরেজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক তন্ময় মজুমদার, কেমিকৌশল বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. সুজন চৌধুরী, কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগের সহকারী অধ্যাপক অতীশ দীপংকর, ফটোগ্রাফার রাজিব কুমার মন্ডল প্রমুখ। এ ছাড়া মতবিনিময় সভায় যবিপ্রবির বিভিন্ন বিভাগ ও দপ্তরের শিক্ষক-কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

জেএ/ডাব্লিউ বিডি নিউজ